স্বনামধন্য ব্যক্তি

মাইকেল মধুসূদন দত্ত.

মাইকেল মধুসূদন দত্ত বাংলার স্বনামধন্য কবি তিনি প্রথম বাংলা কবিতায় সনেট কবিতা লিখার মুকুট অর্জন করেন। বাংলা ভাষায় কবিতা ও কাব্যে বরেণ্য কবির সবচেয়ে বিখ্যাত রচনা হল মেঘনাদবধ কাব্য।

শুধু তাই নয় ভারতীয় ও ভারতীয় উপমহাদেশের ইংলিশ সাহিত্য ইতিহাসের প্রথম সাহিত্যিক মাইকেল মধুসূদন দত্ত তিনি সতেরো বছর বয়স থেকেই ইংরেজিতে তার সাহিত্য রচনা শুরু করেছিলেন।

মধুসূদন দত্ত হিন্দু কলেজে অধ্যায়ন করার সময় তার শিক্ষক David Lester Richardson দ্বারা ইংলিশ সাহিত্যে অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন কারণ রিচার্ডসন একজন লেখক এবং কবি ছিলেন।

মাইকেল মধুসূদন দত্তের জন্ম 25 january 1824 সালে যশোর জেলায় সাগরদাঁড়ি গ্রামে, তৎকালীন বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি, ব্রিটিশ ইন্ডিয়াতে। তার পৈতৃক স্থানটি বর্তমানে বাংলাদেশে যশোর জেলায় অবস্থিত।

মাইকেল মধুসূদন দত্ত এক সম্ভ্রান্ত কায়স্থ হিন্দু পরিবারে তার জন্ম হয়। তার পিতার নাম ছিল রাজনারায়ণ দত্ত ও মাতা ছিল জানভি দেবী। তার বাবা কলকাতার সদর দেওয়ানি আদালতের সনামধন্য উকিল ছিলেন।

কর্ম সূত্রে কলকাতায় অবস্থানকালে তার পিত রাজনারায়ণ দত্ত কলকাতার সার্কুলার গার্ডেনরিচ রোডে তার সুবিশাল অট্রালিকা নির্মাণ করান। আর তেরো বছর বয়স থেকেই মাইকেল মধুসূদন দত্ত তার পরিবারের সাথে কোলকাতায় বসবাস শুরু করেন। তিনি ছিলেন তার পিতা ও মাতার একমাত্র সন্তান।

সাহিত্য জীবন
একজন নাট্যকার হিসেবেই মাইকেল মধুসূদন দত্ত বাংলা সাহিত্য জগতে পদার্পন করেছিলে। তিনি বাংলার প্রথম মৌলিক নাট্যকার রামনারায়ণ তর্করত্ন রচিত রত্নাবলী নাটকের ইংরেজি রূপায়ণ করার সময় বাংলা নাটকের আরও উপযুক্ত নাটকের অভাব অনুভব করেছিলেন বলে জানাজায়।

বাংলা নাটকের এই মৌলিকতার অভাব অনুভব করেই তার বাংলা নাটকে পদার্পন এবং তার প্রথম মৌলিক নাটক শর্মিষ্ঠা রচনা করেন ১৮৫৯ সালে। এই নাটক বাংলায় নাট্যজগতে প্রথম মৌলিক নাটকের মর্যাদা পায়।

Michael Madhusudan Dutta Biography – ভাষাগত দক্ষতা
তার ভাষাগত দক্ষতার ঝুলি ছিল অফুরান তাকে বহুভাষাবিদ ও বলাযায়। তিনি ইংরেজি ছাড়াও ল্যাটিন ভাষা, গ্রিক ভাষা, ফরাসি ভাষা, হিবরু, তামিল, তেলেগু ইত্যাদি ভাষায় সহজেই কথা বলতে জানতেন। মাতৃভাষা ছাড়াও তিনি আরও বারোটি ভাষা জানতেন।

তার শিক্ষাজীবনের শুরু হয় গ্রামের টোল থেকে তিনি তার ভাষাশিক্ষা শুরু করেন ফরাসি ভাষা শিক্ষার মাধ্যমে। এবং আশ্চর্যের ব্যাপার ছিল তিনি ইংরেজি বাংলা ভাষার পাশাপাশি ফরাসি ও ইতালিও ভাষায় রচনা লিখতে পারতেন

Death – মৃত্যু
মাইকেল মধুসূদন দত্তের জীবনের শেষজীবন খুবই অর্থকষ্টে ও অভাব অনটনের মধ্যে কাটাতে হয়েছে। তিনি তার জীবনে কখনো ব্যায় সংকোচনে আগ্রহী ছিলেন না তাই তাকে ঋণে জর্জরিত শেষ সময়ে উন্নত চিকিৎসা ব্যাবস্থা করতে আগ্রহী ছিলেন না।

খুবই নিদারুন অর্থাভাবে কোন রকমে তার চিকিৎসা চলছিল আলিপুর জেনারেল হাসপাতালে সেখানেই ২৯ জুন ১৮৭৩ সালে তিনি শেষ নিঃস্বাস ত্যাগ করেন।

Leave a Reply